ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিতে পারে

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Email
Print

করোনা মহামারির মধ্যে দেশে প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গুতে আক্রাত রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৭ জন ডেঙ্গু রোগী দেশের বিভিন্ন জেলার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই রোগীর সংখ্যা ২১৯।

মানি করা হয়ে এপ্রিল থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ে। তবে জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে বেশি লোক আক্রান্ত হয়। কয়েক দিন থেমে থেমে বৃষ্টি হওয়ায় এডিস মশার বংশবিস্তারে প্রভাব ফেলছে।

এদিকে রাজধানীর ১৯টি এলাকাকে অতি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে । এসব এলাকার মশার ঘনত্ব ৫০ শতাংশের বেশি পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটির ১০টি এবং উত্তরের ৯টি এলাকা রয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চলমান জরিপের তথ্য অনুযায়ী, ৫০ শতাংশেরও বেশি মশার ঘনত্ব পাওয়া ঢাকা দক্ষিণের এলাকাগুলো হলো ওয়ারী, মতিঝিল, মুগদা, বাসাবো, যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, খিলগাঁও, শান্তিনগর, সিদ্ধেশ্বরী ও পল্টন এবং ঢাকা উত্তর সিটির এলাকাগুলো হলো রামপুরা, গুলশান, উত্তরা, মিরপুর, বনশ্রী, কল্যাণপুর, শ্যামলী, ভাটারা ও মোহাম্মদপুর।

এর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটির মোহাম্মাদপুর বেড়িবাঁধ এলাকার চাঁদ উদ্যান, সাত মসজিদ হাউসিং ও ঢাকা উদ্যান ডেঙ্গু আক্রান্তের হার আশঙ্কা জনক ভাবে বাড়ছে।

সরেজমিনে বেড়িবাঁধ এলাকার চাঁদ উদ্যান, সাত মসজিদ হাউসিং ও ঢাকা উদ্যান এলাকা ঘুরে ও এলাকার স্থানিওদের সাথে কথা বলে যানাযায় ঐ এলাকাতে মসার নিধনের যে ওষধ দেয়ার কথা তা দেয়া হচ্ছে না আবার দিলেও মাসে একদিন দিয়ে চলে যাচ্ছে। স্থানিও প্রসানের মশা নিধনের কোন উদ্যোগ নেই বলে জানাজায়

এদিকে দেশে ডেঙ্গুর উপসর্গ নিয়ে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)